Breaking News

৭ম শ্রেণির গার্হস্থ্য বিজ্ঞান ১৩ অধ্যায় সৃজনশীল

৭ম শ্রেণির গার্হস্থ্য বিজ্ঞান ১৩ অধ্যায় সৃজনশীল: আসসালামু আলাইকুম, কেমন আছেন সবাই? আশা করি সবাই ভালো আছেন। আজকের আর্টিকেলে ৭ম শ্রেণির গার্হস্থ্য বিজ্ঞান ১৩ অধ্যায় সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর শেয়ার করা হবে। কথা না বাড়িয়ে তাহলে চলুন শুরু করি।

৭ম শ্রেণির গার্হস্থ্য বিজ্ঞান ১৩ অধ্যায় সৃজনশীল

প্রশ্ন ১। মলির মা একজন গৃহিণী। তিনি প্রতিদিনের কাজ সেরে টিভি দেখে বাকি সময় কাটিয়ে দেন। মলি মাকে বস্ত্র অলংকরণের মাধ্যমে অর্থ উপার্জনের পরামর্শ দেয়। মলির বুদ্ধি দেখে তার মা খুশি হন এবং তিনি ঘরে বসেই বস্তু অলংকরণের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করার পথ খুঁজে পান।

ক. প্রিন্টিং কী?
খ. বিভিন্ন বস্তু অলঙ্করণ করার উপায় ব্যাখ্যা কর।
গ. মলি তার মাকে যেভাবে অর্থ উপার্জনের পরামর্শ দেয় তার পদ্ধতিগত পার্থক্য ব্যাখ্যা কর।
ঘ. উদ্দীপকে বর্ণিত কোন পদ্ধতি ব্যবহার করে বস্তুকে অধিক আকর্ষণীয় করা যায়? – মতামত দাও।

১নং প্রশ্নের উত্তর

ক। প্রিন্টিং মানেই হচ্ছে বজ্রে রং ও নকশার প্রয়োগ।

খ। বিভিন্নভাবে বা পদ্ধতিতে বস্ত্র অলংকরণ করা হয়। সাধারণত গঠনমূলক নকশা এবং সজ্জামূলক নকশার মাধ্যমে বস্ত্র অলংকরণ করা হয়। অলংকরণ করার ফলে বস্ত্রের আকর্ষণ বৃদ্ধি পায় এবং ক্রেতার দৃষ্টি আকর্ষণে সমর্থ হয়। মূলত বৈচিত্র্য আনয়ন ও আকর্ষণ বৃদ্ধির জন্যই বস্ত্র অলংকরণ করা হয়।

গ। উদ্দীপকে মলি তার মাকে যেভাবে অর্থ উপার্জনের পরামর্শ দেয় সেটা হলো গঠনমূলক বস্তু অলঙ্করণ। এর মধ্যে পদ্ধতিগত পার্থক্য বিদ্যমান। বস্ত্রের মূল কাঠামো দেওয়ার জন্য যে নকশা করা হয় তাকে গঠনমূলক নকশা বলে।

পক্ষান্তরে, বস্তুকে আকর্ষণীয় করার জন্য যে নকশা করা হয় তাকে সজ্জামূলক নকশা বলে। গঠনমূলক নকশার কাজে সরল পদ্ধতিতে কাজ করা হয়। অন্যদিকে, সজ্জামূলক নকশার কাজে জটিল পদ্ধতিতে কাজ করা হয়।

গঠনমূলক নকশার বস্তুকে সজ্জামূলক নকশার বস্ত্রে পরিণত করা যায়। পক্ষান্তরে, সজ্জামূলক নকশার বস্তুকে গঠনমূলক নকশার বস্ত্রে পরিণত করা যায় না।

আরও দেখুন  ৭ম শ্রেণির গার্হস্থ্য বিজ্ঞান ৪র্থ অধ্যায় সৃজনশীল

ঘ। উদ্দীপকে বর্ণিত বস্ত্র অলঙ্করণের সজ্জামূলক নকশার মাধ্যমে বস্তুকে অধিক বৈচিত্র্যময় ও আকর্ষণীয় করে তোলা যায়। বর্তমান সময় তথা প্রাচীনকাল থেকে বন্ত্র উৎপাদনের পর মূল লক্ষ্য থাকে ক্রেতার দৃষ্টি আকর্ষণ।

কীভাবে ক্রেতার দৃষ্টি আকর্ষণ করা যায়, এ চিন্তা মাথায় রেখেই বস্ত্র উৎপাদন করা হয়। আর এজন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো সজ্জামূলক নকশা। এর মাধ্যমে বস্তুকে সর্বাধিক বৈচিত্র্যময় ও আকর্ষণীয় করে তোলা সম্ভব।

যদিও এ পদ্ধতি অনেক জটিল, তার পরও এ নকশার মাধ্যমে উৎপাদিত বস্তু তুলনামূলক বেশি ক্রেতার দৃষ্টি আকর্ষণে সমর্থ হয় এবং সজ্জামূলক নকশার মাধ্যমেই বস্তুকে আকর্ষণীয় ও বৈচিত্র্যময় করে তোলা যায়।

প্রশ্ন ২। হালিমা আক্তার স্বনির্ভরতা অর্জনের লক্ষ্যে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর থেকে হস্তশিল্পের ওপর প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। সেখান থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজে ছোটখাটো ব্যবসায় শুরু করেছেন। তিনি বিছানার চাদর, পর্দা, কুশন কভার, টেবিল ক্লথ, শাড়ি, সালোয়ার- কামিজ এগুলোতে বিভিন্ন ধরনের নকশা করেন। তবে তার টাই ডাই করা কাপড়গুলো বিক্রি হয় বেশি। টাইডাইয়ে হালিমা আক্তর বিশেষ পারদর্শী।

ক. তাঁতে বস্ত্র উৎপাদনের সময় কয় সেট সুতার প্রয়োজন হয়?
খ. গঠনমূলক নকশা বলতে কী বোঝ? ব্যাখ্যা কর।
গ. হালিমা আক্তার বন্ধে কীভাবে টাইডাই করেন? বর্ণনা কর।
ঘ. বস্ত্রে বৈচিত্র্য আনয়নে হালিমা আক্তারের বস্তু অলংকরণ পদ্ধতির গুরুত্ব বিশ্লেষণ কর।

২নং প্রশ্নের উত্তর

ক। তাঁতে বস্ত্র উৎপাদনের সময় দুই সেট সুতার প্রয়োজন হয়।

খ। বস্ত্রের মূল কাঠামো দেওয়ার জন্য যে নকশা করা হয় তাকে গঠনমূলক নকশা বলে। গঠনমূলক নকশা করতে একসেট সুতা তাঁতে লম্বালম্বিভাবে সাজানো থাকে, আর এক সেট সুতা লম্বালম্বি সুতার ভেতর দিয়ে আড়াআড়িভাবে চালনা করে বস্তু উৎপাদন করতে হয়। গঠনমূলক নকশার বস্তু উৎপাদনের পরও আমরা বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় বস্ত্র অলংকৃত করে বস্তুকে সজ্জামূলক বস্ত্রে পরিণত করতে পারি। যেমন- এক রঙের কাপড়ের উপর প্রিন্টিং, পেইন্টিং এমব্রয়ডারি ইত্যাদি।

আরও দেখুন  ৭ম শ্রেণির গার্হস্থ্য বিজ্ঞান ৬ষ্ঠ অধ্যায় সৃজনশীল

গ। উদ্দীপকের হালিমা আক্তার বস্ত্রে টাইডাই করেন। সরাসরি কাপড়ে রং না করে কাপড় বেঁধে রং করার পদ্ধতিকে টাইডাই বলে। টাইডাই করতে প্রয়োজন হয় পাতলা কাপড়, সুতা, বোতাম, ছোট ছোট পাথর, ডাল, রং, ছোলা, কষ্টিক সোডা, লবণ, আঠা, কাঁচি, স্কেল, প্লাস্টিকের গামলা ইত্যাদি টাইডাই করার প্রণালি : নতুন কাপড়ে মাড় থাকলে রং ভালোভাবে ধরে না।

তাই প্রথমেই মাড় দূর করে শুকিয়ে ইস্ত্রি করে নিতে হবে। তারপর কাপড়টিকে বিভিন্নভাবে ভাঁজ দিয়ে সেলাই করে অথবা পাথরের টুকরা, ডাল ইত্যাদি কাপড়ের ভেতরে রেখে সুতা দিয়ে বেঁধে রঙে কাপড়টি ডোবাতে হবে। এতে বাঁধা অংশে রং ঢুকতে পারবে না।

ফলে শুকানোর পর যখন সুতা খোলা হবে তখন সুন্দর একটি ডিজাইন সৃষ্টি হবে। রং করার জন্য কাপড়ের ওজনের ১০ গুণ পানি দিতে হবে। ১ গজ কাপড় রং করার জন্য একটি স্টিল বা অ্যালুমিনিয়ামের পাত্রে ১ লিটার পানি ফুটন্ত গরম করে নিতে হবে।

এখন তিনটি ছোট পাত্রে ১ গজ কাপড়ের জন্য ২ গ্রাম ভ্যাট, /, গ্রাম কষ্টিক সোডা, / গ্রাম হাইড্রোসালফাইড গরম পানিতে গুলে পর্যায়ক্রমে ফুটন্ত পানিতে ছেঁকে দিতে হবে। এরপর রঙের পাত্রে কাপড় দিয়ে ভালোভাবে নাড়াচাড়া করতে হবে। ১৫ মিনিট পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে কাপড় ধুয়ে, শুকিয়ে, বাঁধন খুলে ইস্ত্রি করে নিতে হবে।

ঘ। বস্ত্রে বৈচিত্র্য আনয়নে হালিমা আক্তার বস্ত্রে অলংকরণ করেন। বস্তু বয়নের সময় তেমন একটা বৈচিত্র্য আনা সম্ভব হয় না। সুতা থেকে কাপড় তৈরি করার পরই বৈচিত্র্য আনা সম্ভব। বস্ত্রে বৈচিত্র্য অনেকভাবেই আনা যায়।

বস্ত্রে বৈচিত্র্য ও বস্তু অলংকরণ করলে তা আমাদের সহজেই চোখে পড়ে। আজকাল সবাই নানা বৈচিত্র্যের পোশাক পরিধান করতে চায়। এতে ব্যবসায়ীরও মুনাফা লাভ হয়। বস্ত্রে বৈচিত্র্য থাকলে বিভিন্ন বয়সীরা পরতে পারে। একই নকশার বিভিন্ন রং ও রঙের একই নকশার কাপড় সবার ভালো নাও লাগতে পারে।

আরও দেখুন  ৭ম শ্রেণির গার্হস্থ্য বিজ্ঞান ১২ অধ্যায় সৃজনশীল

প্রত্যেকে তার বয়স, রুচি, পছন্দমতো বিভিন্ন রঙের পোশাক কিনে পরিধান করে। তাই বস্ত্রের বৈচিত্র্য ও অলংকরণ গুরুত্বপূর্ণ। বস্ত্র অলঙ্কৃত করার ফলে একটি কমদামি সাধারণ পোশাকও হয়ে ওঠে অসাধারণ ও দামি।

তাই উদ্দীপকের হালিমা টাইডাই করেন। এর ফলে হালিমা একই রঙে অনেক কাপড় টাইডাই করতে পারেন। ফলে তিনি অনেক কম টাকায় লাভবান হন। টাইডাই করে বিভিন্ন কাপড়ের বৈচিত্র্য আনলে তা বিভিন্ন খাতে ব্যবহার করা যায়। যেমন- চাদর, পর্দা, শাড়ি ইত্যাদি। এগুলোতে টাকা কম লাগে অথচ অনেক বৈচিত্র্য আনা যায়।

ফলে ব্যবসায়ী হিসেবে হালিমা লাভবান হন। তাই বন্ধে বৈচিত্র্য আনয়নে হালিমা আক্তারের বস্তু অলঙ্করণ পদ্ধতির গুরুত্ব অপরিসীম ।

আশাকরি আমাদের আজকের আর্টিকেল টি আপনাদের ভালো লেগেছে। শিক্ষা বিষয়ক সকল ধরণের আর্টিকেল পেতে আমাদের সাথেই থাকুন। ভালো থাকবেন সবাই, ধন্যবাদ।

About মেরাজুল ইসলাম

শিক্ষা মেলা একটি শিক্ষা মূলক ওয়েবসাইট। এখানে নিন্ম মাধ্যমিক, মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক সহ সকল শ্রেণির সাজেশন, প্রশ্নোত্তর ও আর্টিকেল শেয়ার করা হয়।

Check Also

৭ম শ্রেণির গার্হস্থ্য বিজ্ঞান ৯ম অধ্যায়

৭ম শ্রেণির গার্হস্থ্য বিজ্ঞান ৯ম অধ্যায় সৃজনশীল

৭ম শ্রেণির গার্হস্থ্য বিজ্ঞান ৯ম অধ্যায় সৃজনশীল: আসসালামু আলাইকুম, কেমন আছেন সবাই? আশা করি সবাই …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *